পাত্তাই পেল না পোলিশরা, গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই শেষ ষোলোয় মেসিরা

Dec 1, 2022 - 03:01
Dec 1, 2022 - 03:10
 0
পাত্তাই পেল না পোলিশরা, গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই শেষ ষোলোয় মেসিরা

বাঁচা-মরার ম্যাচে পোল্যান্ডকে নাস্তাবুদ করে ম্যাচ শেষ হওয়ার ২০ মিনিট পূর্বেই সমাপ্ত ষোলো প্রায় শিওর করে ফেলেছে আর্জেন্টিনা। সম্পন্ন টাইমে কোনো বাজে ঘটনা না ঘটতে লিওনেল মেসিরাই ‘সি’ গ্রুপ থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়ে পাড়ি দেবে নকআউট পর্বে।

নাইন সেভেন ফোর স্টেডিয়ামে বুধবার (৩০ নভেম্বর) পোল্যান্ডের বিরুদ্ধে ৭৫ মিনিট পর্যন্ত ২- ০ গোলে এগিয়ে আর্জেন্টিনা।আলবিসেলেস্তেদের হয়ে গোল দুইটা করেন অ্যালেক্সিস ম্যাক-অ্যালিস্টার এবং হুলিয়ান আলভারেজ। অন্যদিকে আক্রমণ তো দূরে থাক রক্ষণ সামলাতেই ব্যস্ত পোলিশরা।

ম্যাচের চালু থেকেই আক্রমণাত্মক খেলা পুরস্কার দেন লিওনেল স্ক্যালোনির শিষ্যরা। ৭ মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে শট নেন লিওনেল মেসি। কিন্তু তার নিচু শটটি চলে যায় ভয়চেখ সেষ্ণির হাতে।

দুই মিনিট পর বাঁ প্রান্ত থেকে অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়ার পাস দখলে নিয়েই ডান প্রান্ত কর্তৃক পোল্যান্ডের ডি-বক্সে দ্রুত গতিতে ঢুকে পড়েন মেসি। ওই স্থান থেকে তার নেওয়া জোরালো শট কর্নারের বিনিময়ে ঠেকিয়ে দেন সেষ্ণি। ১৭ মিনিটে ডি-বক্সে মার্কোস অ্যাকুনার জোরালো শট থাকেনি লক্ষ্যে। এক মিনিট পর তার হেড চলে যায় সরাসরি সেষ্ণির হাতে।

মেসিদের একের পর এক আক্রমণে শুরুর প্রথম ২০ মিনিট কোনো সুবিধাই করতে পারেনি রবার্ট লেভানদোভস্কিরা। তারপর অবশ্য প্রতি আক্রমণে কিছুটা আশা জাগিয়েছিল পোলিশরা। কিন্তু ফ্রি-কিক হতে নেওয়া তাদের শটটি থাকেনি লক্ষ্যে। এক মিনিট পর তারা আরও একটি ফ্রি-কিক পায় তা সত্ত্বেও সেটাও কাজে লাগাতে পারেননি পোলিশরা।

এরপর অবশিষ্ট টাইম পুরোটা একতরফা আক্রমণ চালিয়ে যায় স্ক্যালোনির শিষ্যরা। ২৮ মিনিটে ডি-বক্সে হুলিয়ান আলভারেজের শট ফিরিয়ে দেন সেষ্ণি। কিন্তু বল চলে যায় অরক্ষিত অ্যাকুনার পায়ে। তার নেওয়া জোরালো শট একটুর জন্য জড়ায়নি জালে।

৩৩ মিনিটে কর্নার হতে ডি মারিয়ার ক্রস সরাসরি গোল বারেই ঠাঁই করে নিচ্ছিল, কিন্তু সেষ্ণি কর্নারের বিনিময়ে কোনো রকম বলটি ঠেকিয়ে দেন। এক মিনিট পর মেসির দেওয়া ডি-বক্সের বাইরের শট পোস্টের ওপর দিয়ে যায়। পরবর্তী মিনিটে ওয়ান টু ওয়ান পজিশনে সেষ্ণিকে বিপর্যস্ত করতে অসমর্থ হন হুলিয়ান আলভারেজ। তারপর পোলিশ গোলরক্ষক অসাধারণ নৈপুণ্যে আবার প্রতিহত করেন মেসির হেড।

তবে বল সরাতে গিয়ে মেসির মাথায় লাগায় আর্জেন্টাইনদের আবেদনে ভিআর চেকে পেনাল্টি দেন ম্যাচ রেফারি। তবুও এবারও সেষ্ণির দক্ষতার কাছে হেরে যান মেসি। তার বাঁ পায়ের শট বাম দিকে ঝাপিয়ে পড়ে ঠেকিয়ে দেন এ পোলিশ গোলরক্ষক। অতঃপর ডি-বক্সে আলভারেজের শট ফিরিয়ে দেওয়ার পর, ফিরিয়ে দেন ওয়ান টু ওয়ান পজিশনে ডি পলের শটও। একের পর এক আক্রমণ করেও শেষ পর্যন্ত সেষ্ণির কাছে হার মেনে প্রথমার্ধে মাঠ ছাড়তে হয়ে যায় মেসিদের।

বিরতির পর আলবিসেলেস্তেদের সে হতাশা মুছে করে দেন ম্যাক-অ্যালিস্টার। ডান প্রান্তে নাহুয়েল মোলিনার পাস দখলে নিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে নিখুঁত শটে বল জালে জড়ান এ মিডফিল্ডার। এবার আর পোলিশদের রক্ষাকবচ থেকে পারেননি সেষ্ণি। পরবর্তী মিনিটে সমতায় ফিরতে পারতো পোল্যান্ড। তা সত্ত্বেও ফ্রি-কিক থেকে সতীর্থের ক্রস আর্জেন্টিনার ডি-বক্সে হেড দেন কামিল গ্লিক। তবুও অল্পের জন্য সে বল জালে জড়ায়নি।

৫৯ মিনিটে ডি মারিয়াকে তুলে লিয়ান্দ্রো পারেদেসকে এবং অ্যাকুনাকে তুলে নিকোলাস তালিয়াফিকোকে মাঠে নামান স্ক্যালোনি। এক মিনিট পর ডি-বক্সে গোলের দুর্দান্ত চান্স পেয়েও সেষ্ণির হাতে বল তুলে দেন ম্যাক-অ্যালিস্টার। তবে ভ্রান্তি করেননি আলভারেজ। ৬৮ মিনিটে ডি-বক্সে বল পেয়ে জড়ালো শটে জাল কাঁপান হুলিয়ান আলভারেজ। তাকে অ্যাসিস্ট করেন এনজো ফার্নান্দেজ।

৩ মিনিট পর আরও একবার গোলের সুযোগ বিকৃত করেন মেসি। এক মিনিট পর ওয়ান টু ওয়ান পজিশনে আলভারেজের নেওয়া শট থাকেনি লক্ষ্যে। ৮১ মিনিট পর্যন্ত আর্জেন্টিনার নেওয়া ২১ শটের মধ্যে ১১টিই ছিল টার্গেট বরাবর।

শেষ পর্যন্ত বিজয় নিয়ে মাঠ ছাড়লে ৬ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই সমাপ্ত ষোলো নিশ্চিত করবে আর্জেন্টিনা।

What's Your Reaction?

like

dislike

love

funny

angry

sad

wow